ঢাকা শনিবার, মে ২৫, ২০১৯

ইতিহাসের এই দিনে শুক্রবার ১১ জানুয়ারি ২০১৯

অনলাইন ডেস্ক আপডেট: January 11, 2019

  • বাংলাদেশে বহুল আলোচিত ওয়ান ইলেভেন
    ১১ জানুয়ারী ২০০৭ স্বাধীনতাত্তোরকালে বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটি নজিরবিহীন মাইলফলক। ওয়ান ইলেভেন নামে ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে এ দিনটি। বিএনপির নেতৃত্বে ৪ দলীয় জোট এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৪ দলীয় বা মহাজোট দেশে এক দুঃষহ অরাজক অবস্থার সৃষ্টি করে। একপক্ষ যেকোনো মূল্যে ২২ জানুয়ারি ২০০৭ এর নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইস্পাত কঠিন অবস্থান নেয়। আরেক পক্ষ যেকোনো মূল্যে এ নিবাচন প্রতিহত করার সকল আয়োজন সম্পন্ন করে। সর্বপরি দেশে দেখা দেয় এক ধরনের গৃহযুদ্ধের দুঃখজনক পরিস্থিতি। বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে এমন অবস্থা ইতিপূর্বে আর ঘটেনি। কেউ কাউকে এক চুল ছাড় দিতে নারাজ। রাজপথে প্রকাশ্যে যার যা ইচ্ছে চলতে থাকে। ভাংচুর, জ্বালাও-পোড়াও এমনকি দিনদুপুরে রাজপথে পিটিয়ে মানুষ হত্যা যেনো মামুলি ঘটনায় রূপ নিতে থাকে। রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দীন আহম্মদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ভূমিকা নির্বিকার। মানুষ দিশেহারা। অবস্থা এমন পর্যায়ে উপনিত হয় যে, এ থেকে পরিত্রানের জন্যে মানুষ আল্লাহর রহমত কামনা করা ছাড়া যেনো আর কিছুই ভাবতে পারছিলো না। ওই অবস্থায় অনিবার্যভাবে তৎপর হয়ে ওঠে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী । সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা রাষ্ট্রপতিকে চলমান দুঃষহ পরিস্থিতির অবসান ঘটাতে অনুরোধ করেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে জরুরি অবস্থা জারির অনুরোধও জানানো হয় তাকে। রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দীন আহম্মেদ শেষ পর্যন্ত সেদিন তাই করলেন। পূর্ব থেকে ড্রাফট করা একটি ভাষনও তিনি পাঠ করে শোনান জাতিকে। পাল্টে যায় দেশের সামগ্ৰীক পরিস্থিতি। সেনা সমর্থনে ড. ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃতে গঠিত হয় ব্যতিক্রমী আরেকটি তত্তাবধায়ক সরকার। শুরু হয় দুনীতি দমন, রাজনীতি থেকে দুবৃত্তাতায়ন বন্ধের বিভিন্ন পদক্ষেপসহ সর্বক্ষেত্রে সংস্কারের জোয়ার। বিভিন্ন দল এবং ব্যক্তির দৃষ্টিতে ওয়ান ইলেভেনের মূল্যায় বিভিন্ন রকম হলেও তা বাংলাদেশের গতানুগতিক রাজনীতির খোলনলচে পাল্টে দেয়ার এক নতুন পরিস্থিতি সৃষ্টি করে।
  • ইমাম খোমেনী (রহঃ) বিপ্লবী পরিষদ গঠন
    ১৯৭৯ সালের এ দিনে ইরানের ইসলামী বিপ্লবের সবচেয়ে স্পর্শকাতর সময় চলছে। সে সময় যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সাবেক শাসক রেজা শাহকে রক্ষার চেষ্টা করছে। এ সময় ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম খোমেনী (রহঃ) বিপ্লবী পরিষদ গঠন করার নির্দেশ প্রদান করেন। এই পরিষদের মূল দায়িত্ব ছিলো শাহের বিরুদ্ধে সংগ্রামী জনগণের সাথে সমন্বয় সাধন করা, ইসলামী বিপ্লবের লক্ষ্যগুলোকে এগিয়ে নেয়া এবং অন্তবর্তী ইসলামী সরকার গঠনের ক্ষেত্র তৈরি করা। শাহের পতনের পর এবং ইরানের নতুন সংসদ গঠিত হওয়ার আগ পর্যন্ত এই ইসলামী বিপ্লবী পরিষদ আইন প্রণয়নের দায়িত্ব পালন করেছে।
  • যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীদের বিচারের সামরিক আদালত গঠন
    ২০০২ সালের এ দিনে কিউবার গুয়ান্টানামো বে অবস্থিত মার্কিন নির্যাতন শিবিরে প্রথম বন্দিদের প্রেরণ করা হয়েছিলো। কথিত সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নামে এদের আটক করা হয়েছিলো। দক্ষিণপূর্ব কিউবার কাছে ক্যারিবিয়ান সাগরের কাছে গুয়ান্টনামো বের অবস্থান। এখানেই রয়েছে যুক্তরাষ্টের নৌ বাহিনীর ঘাঁটি। আর এই ঘাটিতে স্থাপন করা হয় কুখ্যাত বন্দি শিবিরটি। ২০০১ সালে আফগানিস্তানে হামলা চালিয়ে তালেবান সরকারের উৎখাত করার পর থেকে গুয়ান্টানামো বে অবস্থিত মার্কিন নির্যাতন শিবিরে বন্দিদের আনার কাজ শুরু হয়। ২০০১ সালে প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের এক নির্দেশ বলে যুক্তরাষ্ট্র আল কায়েদার সদস্য বা যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীদের বিচার করা জন্য একটি সামরিক আদালত গঠন করেছিলো।
  • বলশেভিক নেতা লিও ট্রটস্কিকে নির্বাসনে প্রেরণ
    ১৯২৮ সালের এ দিনে সোভিয়েত রাশিয়ার নেতা জোসেফ স্টালিন তৎকালীন বলশেভিক নেতা লিও ট্রটস্কিকে নির্বাসনে প্রেরণ করেছিলেন। তাকে মধ্য এশিয়ার দূরবর্তী স্থান আলমা আতায় নির্বাসনে প্রেরণ করা হয়েছিলো। একবছর তিনি সেখানে নির্বাসনে থাকেন তারপর তাকে সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে চিরজীবনের জন্য বহিস্কার করা হয়। ট্রটস্কি ১৮৭৯ সালে ইউক্রেনে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। কিশোর বয়সেই তিনি মার্ক্সবাদে দীক্ষিত হয়ে উঠেন। পরবর্তীতে ওডেসা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়ন ত্যাগ করে তিনি বিপ্লবী কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। পরে লেনিনের পররাষ্ট্র বিষয়ক সচিবের দায়িত্ব তিনি পালন করেছিলেন। ১৯২৪ সালে লেনিনের পরলোক গমনের পর সোভিয়েত রাশিয়ার কর্ণধার হলেন স্টালিন। তার সাথে টানাপোড়েন সৃষ্টি হওয়ার পর ট্রটস্কিকে শেষ পর্যন্ত সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে বহিস্কার করা হয়। সে সময় তিনি তুরস্ক, ফ্রান্স, নরওয়ে হয়ে শেষ পর্যন্ত মেক্সিকো সিটিতে বসবাস করতে শুরু করেন। ১৯৪০ সালের ২০শে আগস্ট তাকে বরফ কাটার কুঠারের আঘাতে হত্যা করা হয়।
  • এইচ. জর্জ সেলফরিজ জন্ম
    ১৮৬৪ সালের এ দিনে যুক্তরাজ্যের সেলফরিজ এন্ড কোং নামের চেইন স্টোরের প্রতিষ্ঠাতা এইচ. জর্জ সেলফরিজ জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। ক্রেতা কোনো ভুল করতে পারেন না বা ক্রেতারা সব সময় সঠিক বলে বিপণণ ক্ষেত্রে যে আপ্তবাক্য প্রচলিত আছে তার প্রচলন ঘটিয়ে ছিলেন সেলফরিজ। তিনি কেনাকাটাকে খাটুনির কাজের পরিবর্তে আনন্দদায়ক বিষয়ে পরিণত করার জন্য চেষ্টা করেছিলেন। তিনি ক্রেতাদের কেনা কাটাকে সহজসাধ্য করার জন্য যে সব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন বিশ্বব্যাপী আধুনিক ডিপার্টমেন্টার স্টোরগুলোতে আজ সে সব পদক্ষেপই গ্রহণ করা হয়।
  • আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট শাদলি বেনজাদিদ পদত্যাগ
    ১৯৯২ সালের এ দিনে আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট শাদলি বেনজাদিদ পদত্যাগ করেন। এর আগে সে দেশটিতে ইসলামী স্যালভেশন ফ্রন্ট বা এফআইএস ব্যাপক রাজনৈতিক সাফল্য অর্জন করে এবং দেশেটির পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। ১৯৭৯ সালে বুমেদিনের পরলোকগমনের পর শাদলি বেনজাদিদ দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ব্যাপক হাঙ্গামার পর ১৯৮৮ সালে তিনি দেশটির সংবিধান পরিবর্তন করে বহু দলীয় তৎপরতাকে বৈধতা দান করেন। ১৯৮৯ সালে স্যালভেশন ফ্রন্ট গঠন করা হয় এবং অল্প সময়ের মধ্যে এ দলটি ব্যাপক ভাব জনপ্রিয় হয়ে উঠে। ১৯৯০ সালে আঞ্চলিক নির্বাচনে দলটি জয় লাভ করে। এরফলে ত্রিশ বছর যাবত ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট ক্ষমতা হারায়। তবে ১৯৯১ সালের মে ও জুন মাসে ব্যাপক ধর্মঘটের ফলে বেনজাদিদ আলজেরিয়ার সংসদ নির্বাচন দিতে বাধ্য হন। তবে সংসদ নির্বাচনে ইসলামপন্থীদের বিজয়ে দেশটির শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তারা বিশেষ করে সেনা কর্মকর্তাদের জন্য তা মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। শেষ পর্যন্ত সেনাবাহিনী নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে এবং বেনজাদিদ পদত্যাগ করতে বাধ্য হন।

মোগল স¤্রাট জাহাঙ্গীর কর্তৃক ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানিকে সুরাটে কারখানা স্থাপনের অনুমতি প্রদান (১৬১৩)
ইতালির কাতনিয়ায় ভূমিকম্পে ৬০ হাজার নিহত (১৬৯৩)
সিংহলে ব্রিটিশের কাছে ডাচ বাহিনীর আত্মসমর্পণ (১৭৮২)
ভারতের ভাইসরয় লর্ড কার্জনের জন্ম (১৮৫৯)
অস্ট্রেলিয়া যাবার পথে জাহাজ লন্ডন বিধ্বস্ত হয়ে ২৩১ জনের মৃত্যু (১৮৬৬)
আবুধাবীর শাসক শেখ শাখবৌত ব্রিটিশ নেতৃত্বাধীন কনসোর্টিয়ামের সঙ্গে আমিরাতের প্রথম তেল চুক্তি স্বাক্ষর (১৯৩৯)
দ্বিতীয় বিশ^যুদ্ধের সময় জাপান মালয়েশিয়া কুয়ালালামপুর দখল করে (১৯৪২)
গৃহযুদ্ধে গ্রিসের অস্ত্র বিরতি ঘোষণা (১৯৪৫)
পেরুতে হিমবাহে চাপা পড়ে ৩ হাজার গ্রামবাসী নিহত (১৯৬২)
সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশকে পূর্ব জার্মানির স্বীকৃতি (১৯৭২)
বাংলাদেশে অস্থায়ী সংবিধান আদেশ জারি। এ আদেশ বলে গণপরিষদ গঠিত (১৯৭২)
অভ্যুত্থানে ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগুয়েজ লার ক্ষমতাচ্যুত (১৯৭৬)
কলম্বিয়ায় ৫২ যাত্রীসহ আন্তর্জাতিক পরিবহন বিমান বিধ্বস্ত । মাত্র ১ জন
ছাড়া সবাই নিহত (১৯৯৫)

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন